বিশ্ব পরিবার দিবস আজ চলুন জেনে নেওয়া যাক পরিবার দিবসের গুরুত্ব

Category: Current Affairs Posted by:
আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস আজ

পরিবার” শব্দটির অর্থ অসীম। সামাজিক ঐক্য এবং পারস্পারিক নির্ভরতা পরিবারের মূলমন্ত্র।

একজন পুরুষ আর একজন নারী বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার মধ্য দিয়ে প্রথমত শুরু হয় পরিবারের সূচনা। সন্তান-সন্তুতি জন্ম নেওয়ার পর এই ছোট্ট পরিবারটি একসময় বাবা-মা, ভাই বোন, চাচা-চাচি মিলে যৌথ পরিবারে রূপ লাভ করে।

আর এই যৌথ পরিবারের ঐতিহ্য ধরে রাখার মানসিকতা সৃষ্টির লক্ষে দিবসটি পালিত হচ্ছে। বিশ্বের অন্যান্য স্থানের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি উপলক্ষে নেয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি।

সময়ের তাগিদে যৌথ পরিবার কিংবা পারিবারিক বন্ধন অটুট রাখার বিষয়টি যখন এই সমাজে ক্রমান্বয়ে গুরুত্বহীন হয়ে উঠছে, ঠিক সেই মুহূর্তে আজকের এই আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস পালনের গুরুত্ব অপরিসীম।

রক্তের বন্ধন মানেই পারিবারিক বন্ধন। পরিবারের সকল সদস্যের মধ্যে অকৃত্রিম সুসম্পর্ক গড়ে তোলা এবং তা অটুট রাখা আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব।

আমাদের চিরায়ত সমাজ ব্যবস্থায় সুন্দর জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত হচ্ছে, সুন্দর পারিবারিক বন্ধন। পরিবারের সকল সদস্যের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক বন্ধুর মতো হলে পারিবারিক নানা জটিল সমস্যা ও মোকাবেলা করা যায়। সকলের এগিয়ে চলার পথ হয় মসৃণ। মূলত এই প্রেক্ষাপটেই আজ দেশে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস।

জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৯৮৯ সালে পরিবার নিয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি ও পরিবার সংশ্লিষ্ট সমস্যা কমিয়ে আনতে কিছু নীতি গ্রহণ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালে মে মাসের ১৫ তারিখকে বিশ্ব পরিবার দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ১৯৯৪ সাল থেকে এই দিবসটি পালন হয়ে আসছে।

ইসলামের দৃষ্টিতে পরিবার সমাজের ভিত্তিমূল। হিন্দু ধর্ম মতে, পরিবার হচ্ছে একটি মন্দিরের মতো, যেখানে দেবতা স্বরূপ বাবা-মা বাস করে।

আর সমাজ বিজ্ঞানের ভাষায় মা-বাবা, ভাই-বোন, চাচা-চাচি, দাদা-দদি নিয়েই আমাদের পরিবার। মানুষ যৌথ বা একান্নবর্তী পরিবারে বাস করার কারণেই হয়ত পরিবারের সংজ্ঞা এভাবে করা হয়েছিল। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে এখন সেই চিত্র পাল্টে গেছে। শুধু মা-বাবা আর সন্তান মিলেই হচ্ছে পরিবার। অথচ সমাজ জীবনে বৃহত্তর বা যৌথ পরিবারের ভূমিকা ব্যাপক।

কিন্তু আধুনিক সামাজিক ব্যবস্থার প্রসার, অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা এবং সংখ্যানুপাতিক হারে জীবিকার তারতম্য ঘটতে থাকায় যৌথ পরিবারগুলো ভেঙে যাচ্ছেজীবনের তাগিদেই আগের মতো ভাই-ভাই এক সঙ্গে বসবাস করেন না। এমনকি এই ঢাকা শহরে একই বিল্ডিংয়ে পাশাপাশি ফাটে থাকলেও কথা বা সামাজিক রীতির আদান প্রদান হয় খুবই কম।

কোন মানুষ পরিবারে একটু বড় হলে কিংবা বিয়ে করার পর সন্তান হলেই তার ভবিষ্যতের কথা ভেবে যৌথপরিবার থেকে আলাদা হয়ে নতুন একটি ছোট্ট পরিবারের জন্ম দিচ্ছেন প্রায় সবাই। তার অনুযোগ, যৌথ পরিবারগুলো ভেঙে যাওয়ার কুফল হচ্ছে বৃদ্ধাশ্রমের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া।

ব্যস্ততার কারণে অনেকের পক্ষেই পরিবারের লোকজনকে ঠিকমতো সময় দেয়া সম্ভব হয় না। সম্ভব হলে আজকের এই দিবসে পরিবারের সঙ্গেই থাকুন। ঘরে কিংবা বাইরে একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করুন। গল্প করুন। টিভি কিংবা সিনেমা দেখে সময় পার করুন। পরিবার নিয়ে ঘুরে আসুন কোথাও থেকে।

যাই হোক, বিশ্ব পরিবার দিবসে সকলের পরিবার হোক সুন্দর জীবনের অনুপ্রেরণা।  
Share on This
1 week ago (May 15, 2019) 40 Views

1 responses to “বিশ্ব পরিবার দিবস আজ চলুন জেনে নেওয়া যাক পরিবার দিবসের গুরুত্ব”

  1. Arman HossainArman Hossain(administrator)

    Good post

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts